ব্রাজিলিয়ান লিগে আলো ছড়িয়ে ইউরোপ মাতাবেন যে কয়েকজন তরুণ ফুটবলার

দীর্ঘ এক নাটকীয় মৌসুমকে বিদায় দিয়ে গত মাসে শীর্ষ ৫ লিগ সহ গোটা ইউরোপের ঘরোয়া লিগ ২ মাসের জন্য বিরতি নিয়েছে। নতুন মৌসুম শুরুর আগে এই দুই মাস চলবে খেলোয়াড় বেচাকেনা। আর খেলোয়াড় কেনাবেচার ক্ষেত্রে আমরা মূলত দুই ধরনের দল দেখতে পাই। বর্তমানে ইউরোপীয় ফুটবলের কিছু মধ্যম সারির দল রয়েছে যারা তরুণ খেলোয়াড় নির্ভর দল সাজিয়ে গোটা মৌসুম সকল ঘরোয়া প্রতিযোগিতায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। তাদের লক্ষ্য কখনোই শিরোপা জয়ের দিকে থাকে না। মূলত লিগে প্রথমদিকে থেকে মৌসুম শেষ করার পাশাপাশি দলের তরুণ খেলোয়াড়দের প্রতিভার বিকাশ ঘটিয়ে মিডিয়ার সাহায্যে বড় দলগুলোর নজরে আনাই দলগুলোর মূল লক্ষ্য!

Image Source: Transfer Market.com

বড় দলগুলো ধারাবাহিকভাবে দুই এক মৌসুম ভালো মানের পারফরম্যান্স করা খেলোয়াড়দের বেশি দামে দলে ভেড়াতে চায়। আর এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে শত শত মিলিয়নের ব্যবসা করে নিচ্ছে সেই সব মধ্যম সারির দলগুলো। অপরদিকে, বড় দলগুলো স্কোয়াডে মার্কেটের সেরা তারকাদের অনেক দাম দিয়ে দলে ভেড়াতে পছন্দ করে। কারণ তাদের লক্ষ্য থাকে নিয়মিত শিরোপা জেতা এবং শিরোপা জেতাতে প্রয়োজন সকল পজিশনের সেরা খেলোয়াড়।

ব্রাজিলের কয়েকজন কিংবদন্তি; Image Source: B/R

সেই হিসেবে ইউরোপের বড় এবং মাঝারি সারির দলগুলোতে প্রতিভাবান তরুণ খেলোয়াড়দের সিংহভাগই আসে আটলান্টিকের উত্তর অংশের দেশ ব্রাজিল থেকে। কারো কারো মতে ফুটবলের তীর্থস্থান এই ব্রাজিল। এমনটা হওয়ারও কথা! যুগে যুগে এই ব্রাজিলেই জন্মেছেন অগণিত কিংবদন্তি ফুটবলার। আর সেই ধারাবাহিকতা এখনো অতীতের মতোই অটুট রয়েছে। গত মৌসুমে ব্রাজিলিয়ান লিগে নিজেদের সেরা পারফরম্যান্স উপহার দিয়ে ইউরোপের দলগুলোর নজর কেড়েছেন ডজনখানেক তরুণ ফুটবলার। আজ আমরা আলোচনা করবো সেই সকল প্রতিভাবানদের নিয়ে এবং ইউরোপে তাদের জন্য মুখিয়ে থাকা দলগুলোকে নিয়ে।

রিন্যান লোডি

অ্যাথলেটিকো প্যারানাইন্সের ২১ বছর বয়সী লেফট ব্যাক লোডি গত মৌসুমে ব্রাজিলিয়ান লিগে অসাধারণ পারফরম্যান্স উপহার দিয়েছেন। তার পারফরম্যান্সে মুগ্ধ হয়ে তাকে পরবর্তী অ্যালেক্সান্দ্রো হিসেবেই বিখ্যাত করে তুলেছেন সমর্থকরা। চলতি কোপা আমেরিকায় ডাক পাওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও অভিজ্ঞতার কারণে ডাক পাননি তিনি। যদিও তার বর্তমান দলের কর্তারা আশাবাদী কোপা আমেরিকার পর ব্রাজিলের হয়ে অভিষেক হবে তার।

রিন্যান লোডি; Image Source: B/R

এদিকে লোডির কয়েক বছরের ধারাবাহিক পারফরম্যান্সে মুগ্ধ হয়ে তাকে দলে নিতে আগ্রহী ইউরোপের কয়েকটি বড় দল। আর এই দৌড়ে সবার থেকে এগিয়ে রয়েছে স্প্যানিশ ক্লাব অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। যদিও মাদ্রিদের করা ১৮ মিলিয়নের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছে প্যারানাইন্সে। এদিকে তার রিলিজক্লজ নির্ধারণ করা হয়েছে ২৫ মিলিয়ন ইউরো। অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ ছাড়াও তাকে দলে নিতে আগ্রহী রিয়াল মাদ্রিদ, জুভেন্টাস, নাপোলি এবং জেনিত।

ম্যাথিউস হেনরিক

বর্তমান সময়ের সেরা উদীয়মান মিডফিল্ডারদের মধ্যে ২১ বছর বয়সী এই ব্রাজিলিয়ান অন্যতম। মূলত ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার হিসেবেই খেলেন হেনরিক। গ্রেমিওর হয়ে ২০১৮ সালে একাধিক মেজর শিরোপাও জেতেন তিনি। তার রয়েছে মাঝমাঠের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার অসাধারণ প্রতিভা এবং উভয় পায়ে কিক করার সক্ষমতা। গ্রেমিওতে এমন নান্দনিক পারফরম্যান্স উপহার দেয়ায় তার দিকে নজর দিয়েছে ইউরোপের একাধিক বড় দল।

ম্যাথিউস হেনরিক; Image Source: b/R

ফ্রান্সে চলমান ডৌলন টুর্নামেন্টে ব্রাজিলের হয়ে খেলছেন তিনি। আর সেখানে তাকে পর্যবেক্ষণ করার জন্য স্কাউট পাঠিয়েছে স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা। কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের মতে বার্সেলোনা তার প্রতি আগ্রহী। মাঝমাঠে আর্থারের সঙ্গে তার কম্বিনেশন হতে পারে বার্সার জন্য দীর্ঘমেয়াদী সমাধান। সেই কারণেই তাকে দলে নিতে উঠেপড়ে লেগেছে বার্সা। যদিও তার রিলিজ ক্লজ পরিশোধ করতে প্রস্তুত মোনাকো এবং শাখতার দ্রোনেস্ক। এখন দেখার বিষয় হেনরিক নিজে কোন দলটিতে যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

অ্যান্তনি

সাও পাওলো ফুটবল ক্লাবের ১৯ বছর বয়সী উইঙ্গার অ্যান্তনিকে আয়াক্সের ডেভিড নেরেসের পর দ্বিতীয় সেরা প্রতিভাবান লেফট উইঙ্গার ভাবা হয়। তার যেমন রয়েছে অসাধারণ গতি তেমনি রয়েছে অসাধারণ সব গোল দেয়ার প্রতিভা। মাত্র ১৯ বছর বয়সেই তিনি সাও পাওলোর হয়ে ৫০টিরও বেশি লিগ ম্যাচ খেলেছেন যা তাকে আরো পরিপূর্ণ একজন উইঙ্গার হতে সাহায্য করেছে।

অ্যান্তনি; Image Source: B/R

সর্বশেষ চুক্তি নবায়নে তার জন্য ৫০ মিলিয়ন ইউরো রিলিজক্লজ নির্ধারণ করেছে সাও পাওলো। বাড়তি দাম হওয়ার সত্ত্বেও একাধিক ইউরোপীয় দল প্রতিনিয়ত তাকে পর্যবেক্ষক করে যাচ্ছে। আর্সেনাল, আয়াক্স, অলিম্পিক লিঁও তাকে দলে নিতে একপ্রকার প্রতিযোগিতা করে যাচ্ছে। যদিও তার সম্পূর্ণ রিলিজক্লজ ব্যতীত তাকে ছাড়বে না সাও পাওলো।

এরিক রামিরেস

২০০০ সালে জন্মগ্রহণ করা ফুটবলারদের মধ্যে বাহিয়া ফুটবল ক্লাবের এরিক রামিরেস অন্যতম প্রতিভাবান একজন। একজন অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার হিসেবে তিনি ব্রাজিলিয়ান লিগে গত মৌসুমে বেশ আলো ছড়িয়েছেন। একাডেমিতে থাকাকালীন সময় থেকেই তাকে দলে নিতে উঠেপড়ে লাগে ইউরোপের কয়েকটি দল। যদিও পর্যাপ্ত খেলার সুযোগ পাওয়ার আশায় ব্রাজিলেই থেকে যান রামিরেস।

এরিক রামিরেস; Image Source: B/R

চলমান দলবদল মৌসুমে আবারো ইউরোপের কয়েকটি দল রামিরেসের দল বাহিয়ার কর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। তরুণ ফুটবলার তৈরির জন্য বিখ্যাত দল বরুশিয়া ডর্টমুন্ড তার পুরো রিলিজ ক্লজ পরিশোধ করতে প্রস্তুত। যদিও এই দৌড়ে কিছুদিন আগে যোগ দিয়েছে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। কোচ দিয়েগো সিমিওনে তাকে দলে নিতে আগ্রহী। এখন দেখার বিষয় নির্ধারিত ১০ মিলিয়ন ইউরো রিলিজক্লজ পরিশোধ করে কোন দল রামিরেসকে আগে দলে ভেড়াতে পারে।

পেদ্রো

ফ্লুমিনেন্সের ২১ বছর বয়সী স্ট্রাইকার পেদ্রোকে ভাবা হয় ব্রাজিলের পরবর্তী প্রজন্মের ফ্রেড হিসেবে। তিনি এতটাই প্রতিভাবান ছিলেন যে ব্রাজিল জাতীয় দলের কোচ তিতে একসময় তাকে বেশ পছন্দও করতেন। সর্বশেষ ইনজুরিতে পড়ার আগে তাকে নিয়ে দলবদলের বাজারে বেশ দৌড়ঝাঁপ পোহাতে হয়েছিলো ফ্লুমিনেন্সকে। গত বছর স্প্যানিশ পত্রিকা এস তাদের শিরোনামে তার রিয়ালে আগমন নিয়ে সংবাদ প্রচার করে। যদিও দীর্ঘ ৭ মাসের হাঁটুর ইনজুরির কারণে সকল আলোচনার বাইরে ছিলেন পেদ্রো।

পেদ্রো; Image Source: B/R

ইনজুরি আক্রান্ত না হলে পেদ্রোই রাশিয়া বিশ্বকাপে ডাক পেতেন। কারণ তিতে গ্যাব্রিয়েল জেসুস থেকেও পেদ্রোকে বেশি ভালোবাসতেন। ইনজুরি থেকে ফিরে গত কয়েক মাসে দারুণ পারফরম্যান্স উপহার দিয়েছেন পেদ্রো। চলমান দলবদল মৌসুমে তার জন্য আবারো প্রস্তাব পাঠিয়েছে ইউরোপের কয়েকটি বড় দল। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের মতে তাকে দলে নিতে রিলিজক্লজ পরিশোধ করতে প্রস্তুত ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, ইন্টার মিলান, সেভিয়া ও পোর্তো। এখন পেদ্রো যে দলকে পছন্দ করবেন সেখানেই যোগ দিতে পারবেন বলে জানিয়েছে ফ্লুমিনেন্সের কর্তারা।

Featured Image: B/R

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *