আফ্রিকান নেশন্স কাপ ২০১৯ এর যাবতীয় তথ্যাদি

চলছে মে মাস। আর এই মাসেই শেষ হতে চলেছে ইউরোপসহ প্রায় সিংহভাগ দেশের ঘরোয়া ফুটবল টুর্নামেন্টের চলতি বছরের আয়োজন। ইতোমধ্যেই অনেক দল শিরোপা উদযাপন করছে। শুধুমাত্র ইউরোপ তথা গোটা বিশ্বে বহুল পরিচিত চ্যাম্পিয়ন্স লিগ এবং ইউরোপা লিগের ফাইনাল ম্যাচ দুটিই এখন বাকি। চলতি মাসের ২৯ এবং জুনের ১ তারিখ অনুষ্ঠিত হবে সেই ফাইনাল দুটি। অতঃপর দীর্ঘ দুই মাসের জন্য বিরতি শুরু হবে ঘরোয়া ফুটবলের সবরকম আয়োজনে। শুধুমাত্র খেলোয়াড় কেনাবেচা চলবে ততদিন।

Image Source: Nation.com

কিন্তু ঘরোয়া লিগের এই বিরতিতে মাঠে গড়াবে একাধিক আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্ট। এই বছর কোপা আমেরিকার পাশাপাশি ইউরো বাছাইপর্ব এবং উয়েফা নেশন্স কাপের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের সবকটা আয়োজনকে ছাড়িয়ে যাবে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো গ্রীষ্মকালে অনুষ্ঠিতব্য আফ্রিকা মহাদেশের সর্ববৃহৎ ফুটবল টুর্নামেন্ট, আফ্রিকান কাপ অব নেশন্স।

Image Source: Twitter

পূর্বঘোষিত তথ্যানুযায়ী চলতি বছর এই টুর্নামেন্টটি আয়োজনের দায়িত্বে ছিলো বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ক্যামেরুন। কিন্তু গত কয়েক বছরে টুর্নামেন্টকে ঘিরে তাদের প্রস্তুতি সন্তোষজনক না হওয়ায় মিশরকে আয়োজনের জন্য আমন্ত্রণ জানায় আফ্রিকান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন। মিশর সিএএফ’র এই ডাকে সাড়া দিয়ে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি শুরু করে। এবারের টুর্নামেন্টটি হতে যাচ্ছে আফ্রিকান নেশন্স কাপের ৩২তম আসর।

আফ্রিকান নেশন্স কাপের শিরোপা; Image Source: SkySports

প্রতিবার শীতকালে অনুষ্ঠিত হওয়ায় অনেক আফ্রিকান খেলোয়াড়কেই মৌসুমের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দলে পেতেন না সেসব খেলোয়াড়ের ক্লাব কর্তৃপক্ষ। এতে করে বড়সড় অসমতা তৈরি হতো ক্লাবগুলোতে। কিন্তু এবার আন্তর্জাতিক বিরতিতে অনুষ্ঠিত হবে বলে বেশ স্বস্তির নিশ্বাস ফেলছেন ইউরোপীয় ক্লাব কর্তৃপক্ষগুলো। চলুন দেখে নেয়া যাক কবে, কখন শুরু হতে যাচ্ছে এবারের আফ্রিকান নেশন্স কাপ। সেই সাথে আলোচনা করা যাক টুর্নামেন্টের যাবতীয় তথ্যাদি এবং সবকটা দল নিয়ে সাজানো গ্রুপগুলো নিয়ে।

যেভাবে নির্ধারিত হয়েছে গ্রুপ ও সময়সূচী

অতীতে ১৬টি দল অংশগ্রহণ করলেও এবারের আফ্রিকান কাপ অব নেশন্সে অংশগ্রহণ করবে সর্বমোট ২৪টি দেশ। ইতোমধ্যেই বাছাইপর্ব থেকে সেই সকল দল নির্ধারণ করেছে আফ্রিকান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন সিএএফ। নিয়ম অনুযায়ী ২৪টি দলকে মোট ৬টি গ্রুপে বিভক্ত করা হয়েছে। ফিফা এবং সিএএফের র‌্যাংকিং অনুসারে গ্রুপগুলো ভাগ করেছে আয়োজক কমিটি।

Image Source: Nations.com

গ্রুপপর্বের ম্যাচের মধ্যদিয়ে প্রতি গ্রুপ থেকে ২টি করে দল সরাসরি দ্বিতীয় রাউন্ডে কোয়ালিফাই করবে। সেই সাথে সকল গ্রুপ থেকে পারফরম্যান্স এবং গোলের হিসেবে বাকি ৪টি দল কোয়ালিফাই করবে। দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে কোয়ালিফাই করা ৮টি দল সরাসরি কোয়ার্টার ফাইনাল খেলবে। আর এভাবেই ধারাবাহিকভাবে সেমিফাইনাল এবং ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। তবে শুধুমাত্র সেমিফাইনাল পরাজিত দুই দলের মধ্যকার তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচটি ফাইনাল ম্যাচের আগে অনুষ্ঠিত হবে।

Image Source: BuyBuddies.com

এবারের টুর্নামেন্টটি জুনের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু আয়োজনের দায়িত্ব পাওয়ার পর সময়সূচীতে পরিবর্তন আনে মিশর। জুনের প্রথম দিকে মুসলমান ধর্মাবলম্বীদের রমজান ও ধর্মীয় উৎসব ঈদ থাকায় জুনের শেষদিকে সময় নির্ধারণ করে আয়োজক কর্তৃপক্ষ। সেই অনুসারে এবারের আফ্রিকান কাপ অব নেশন্সের পর্দা উঠবে ২১ জুন। আর ফাইনাল ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে ১৯ জুলাই।

গ্রুপ ‘এ’

৩২তম আফ্রিকান নেশন্স কাপের ‘এ’ গ্রুপের চারটি দলের মধ্যে প্রথমেই রয়েছে স্বাগতিক দেশ মিশর। আর মিশরকে নেতৃত্ব দিবেন টানা দুই মৌসুম ধরে প্রিমিয়ার লিগের গোল্ডেন বুট পুরস্কার জেতা মোহাম্মদ সালাহ। সেই হিসেবে বলা যায় এবারের টুর্নামেন্টের সবচেয়ে ফেভারিট দল মিশর।

Image Source: Nations.com

এই গ্রুপের দ্বিতীয় দলটি হচ্ছে ডেমোক্রেট রিপাবলিক অব কঙ্গো। এছাড়াও আরো রয়েছে উগান্ডা এবং জিম্বাবুয়ে। এখান থেকে মিশরের কোয়ালিফাই অনেকটা নিশ্চিত বলা যায়। তবে দ্বিতীয় স্থানের জন্য মূল লড়াইটা হবে কঙ্গো এবং জিম্বাবুয়ের মধ্যে।

গ্রুপ ‘বি’

বি গ্রুপের হট ফেভারিট নাইজেরিয়া। বিশ্বকাপ ফুটবলে আফ্রিকান পরাশক্তি হিসেবে প্রতিনিয়তই উত্তাপ ছড়িয়ে আসছে দলটি। এবারও শিরোপা জয়ের জন্যেই হয়তো মিশরে পাড়ি জমাবেন সুপার ঈগলসরা।

Image Source: Goal

নাইজেরিয়ার পাশাপাশি এই গ্রুপটি থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে গুইনিয়া, মাদাগাস্কার ও বুরুন্ডি। নাইজেরিয়ার পথের কাঁটা হিসেবে কেউ না থাকলেও দ্বিতীয় স্থানের জন্য বাকি তিন দলের মধ্যে বেশ শক্তিশালী লড়াই হবে তা নিশ্চিতভাবে বলা যায়।

গ্রুপ ‘সি’

আফ্রিকান কাপ অব নেশন্সের এবারের আসরে সবচেয়ে শক্তিশালী গ্রুপটি হচ্ছে ‘সি’ গ্রুপ। কারণ এখানে রয়েছে শক্তিশালী সেনেগাল এবং আলজেরিয়া। সেনেগালকে নেতৃত্ব দিবেন ব্ল্যাক ডায়ামন্ড খ্যাত সাদিও মানে। অন্যদিকে, আলজেরিয়ার সকল স্বপ্ন রিয়াদ মাহরেজকে ঘিরে।

Image Source: TotalAfrica

আর তাদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নিশ্চয়ই ছাড় দিয়ে কথা বলবে না কেনিয়া এবং তাঞ্জানিয়া। দল দুটিরও চমক দেখিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে কোয়ালিফাই করার সামর্থ্য রয়েছে।

গ্রুপ ‘ডি’

‘ডি’ গ্রুপকে সবসময় ডেথ গ্রুপ বলা হলেও এবারের টুর্নামেন্টে ঐরকম কিছুই মনে হচ্ছে না। এই গ্রুপে রয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মরক্কো এবং আইভরি কোস্ট। যদিও খেলোয়াড় অনুসারে এবারের টুর্নামেন্টের শক্তিশালী দলগুলোর একটি এই মরক্কো। ফর্মে থাকা হাকিম জিয়েচ, আশ্রাফ হাকিমি, মাহাদী বার্নাতিয়ার মতো খেলোয়াড় রয়েছে দলটিতে।

Image Source: Goal

আইভরি কোস্ট দলগতভাবে এই টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় রাউন্ডে কোয়ালিফাই করার যোগ্যতাসম্পন্ন। গ্রুপের বাকি দুই দল দক্ষিণ আফ্রিকা ও নামিবিয়া দলগতভাবে তেমন শক্তিশালী নয়।

গ্রুপ ‘ই’

আফ্রিকান কাপ অব নেশন্সের পঞ্চম গ্রুপটিতে শক্তিশালী দল হিসেবে প্রথমেই রয়েছে তিউনিসিয়া। নিশ্চিতভাবে বলা যায় এই দলটি বিনাবাধায় দ্বিতীয় রাউন্ডে কোয়ালিফাই করতে পারবে। যদিও ‘ই’ গ্রুপে তিউনিসিয়ার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারে মালি।

Image Source: Goal

মালির মতো দলগতভাবে শক্তিশালী না হলেও পার্থক্য গড়ে দেয়ার মতো একাদশ রয়েছে ম্যাউরিটানিয়া এবং অ্যাঞ্জলার। দল দুটিও এবারের টুর্নামেন্ট চমক দেখাতে পারে।

গ্রুপ ‘এফ’

এবারের টুর্নামেন্টের ষষ্ঠ এবং সর্বশেষ গ্রুপটি হচ্ছে ‘এফ’ গ্রুপ। এই গ্রুপের চারটি দলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি লাইমলাইটে থাকবে ক্যামেরুন। দলটি এবারের টুর্নামেন্টে জায়ান্ট হিসেবেই অংশগ্রহণ করতে যাচ্ছে।

Image Source: Goal

অন্যদিকে, ঘানা নিঃসন্দেহে ক্যামেরুনের পর এই গ্রুপে দলগতভাবে শক্তিশালী। অন্যদিকে, বিনিন এবং গুইনিয়া-বিসাউয়ের এবারের টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করাটা আনুষ্ঠানিকতা ব্যতীত কিছুই নয়।

স্পন্সরশিপ, ভেন্যু, প্রাইজমানি, মাসকট এবং টিভি সম্প্রচার

৩২তম আফ্রিকান কাপ অব নেশন্স টুর্নামেন্টটি মিশরের ৪টি শহরের ৬টি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এবারের টুর্নামেন্টের মাসকটের নাম টুট। অন্যদিকে, টুর্নামেন্টের বলের নাম নির্ধারণ করা হয়েছে মিত্রি। পুরো টুর্নামেন্টের স্পন্সরশিপ ভাগাভাগি করে নিয়েছে ভিসা, ইয়ামাহাসহ ৫টি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান।

মিশরের একটি স্টেডিয়াম; Image Source: Nation.com

আফ্রিকান দেশগুলোর অর্থনৈতিক অবস্থা বিশ্বের অন্য যেকোনো অঞ্চলের চেয়ে কম সমৃদ্ধ। যার ফলে এই টুর্নামেন্টের প্রাইজমানিও তেমন বেশি নয়। চ্যাম্পিয়ন হওয়া দলের জন্য ৪.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার প্রাইজমানি নির্ধারণ করেছে কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে, রানার্সআপ দল পাবে ২.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। এছাড়াও সেমিফাইনালে কোয়ালিফাই করা প্রতিটি দল পাবে যথাক্রমে ২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

Image Source: BlackPage

এবারের আফ্রিকান কাপ অব নেশন্সের সকল ম্যাচ সরাসরি সম্প্রচারের স্বত্ব কিনে নিয়েছে ব্রিটিশ ভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেল ইউরো স্পোর্টস। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে টুর্নামেন্টটি সম্প্রচার করবে কাতার ভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেল বিইন স্পোর্টস। গ্রাহকদের কথা চিন্তা করে উভয় প্রতিষ্ঠানই টেলিভিশনের পাশাপাশি লাইভ স্ট্রিমিংয়ের মাধ্যমে খেলা দেখার সুযোগ করে দিবে বলে জানিয়েছে আয়োজক কমিটি।

Featured Image: Goal.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *