যে ৫টি বড় দলের চেয়ে রোনালদোর নক আউট পর্বের গোল বেশি

ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলের সর্বাধিক মর্যাদাপূর্ণ প্রতিযোগিতা এখন অবধি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। এর আগে এটির নাম ছিলো ইউরোপিয়ান কাপ। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ নামকরণের পর থেকে এটি যেমন নতুনত্ব পেয়েছে তেমনিভাবে একাধিক তারকা ফুটবলার এবং ক্লাবের জনপ্রিয়তা অত্যধিক বেড়েছে। আর এই জনপ্রিয় খেলোয়াড়দের মধ্যে অন্য সবার চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন পর্তুগিজ তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো; Image Source: 90Min

এই প্রতিযোগিতার নাম উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ হওয়ার পর এখন অবধি সর্বোচ্চ সংখ্যকবার ফাইনালে অংশগ্রহণ করা ফুটবলার রোনালদো। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের প্রায় সকল রেকর্ডের মালিক তিনি। রোনালদো মোট ৬ বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল খেলেছেন এবং ৫ বার শিরোপাও জিতেছেন। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলদাতাও সাবেক এই রিয়াল মাদ্রিদ তারকা। এই প্রতিযোগিতার সকল পর্ব মিলিয়ে তার গোলসংখ্যা ১২৬টি।

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো; Image Source: 90Min

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের এতশত রেকর্ডের মালিক রোনালদো সকল রেকর্ডকে ছাড়িয়ে অনন্য একটি রেকর্ডও গড়েছেন। আর সেটি হলো নক আউট পর্বে সর্বোচ্চ গোল করার রেকর্ড। এই প্রতিযোগিতার নক আউট পর্বে এখন অবধি ৬৫টি গোল করেছেন তিনি যা ইউরোপের ডজনখানেক দলের নক আউট পর্বের মোট গোল থেকেও বেশি। এছাড়াও এমন কয়েকটি বড় দল রয়েছে যাদের নক আউট পর্বের মোট গোল রোনালদোর ৬৫ গোলকেও ছাড়াতে পারেনি। আজ আলোচনা করা হলো এমনই ৫টি দল নিয়ে, চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নক আউট পর্বে যাদের মোট গোল সংখ্যাকে অনেক আগেই ছাড়িয়ে গেছেন রেকর্ডের রাজপুত্র রোনালদো।

৫. পিএসজি (নক আউট পর্বে মোট গোল ৩৮টি)

নিঃসন্দেহে বলা যায় বর্তমান সময়ে ইউরোপীয় শীর্ষ ৫ লিগের শক্তিশালী দলগুলোর মধ্যে প্যারিস সেইন্ট জার্মেই অন্যতম। দলটি বিগত বছরগুলোতে শত শত মিলিয়ন খরচ করে শক্তিশালী দল গড়েছে। মূলত নাসের আল খেলাইফি দলটির দায়িত্ব নেয়ার পর এমন পরিবর্তন আসে। ২০১৭ সালে পিএসজি ২২০ মিলিয়ন পাউন্ডের বিনিময়ে নেইমারকে দলে ভেড়ায়, যা ফুটবল ইতিহাসের সর্বোচ্চ দলবদল। একই বছর খেলাইফি দলে নেন বর্তমান সময়ের সেরা তরুণ ফুটবলার কিলিয়েন এমবাপ্পেকে। চলতি মৌসুমে এমবাপ্পে ৩০ গোল করে এখন অবধি শীর্ষ ৫ লিগের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা।

পিএসজির খেলোয়াড়েরা; Image Source: 90Min

কিন্তু এত এত তারকা খেলোয়াড় নিয়েও বিগত বছরগুলোতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নক আউট পর্ব থেকে ধারাবাহিকভাবে বাদ পড়েছে দলটি। পিএসজির ইতিহাস পর্যালোচনা করলে এই প্রতিযোগিতায় তেমন কোনো উল্লেখযোগ্য সফলতা নেই। সর্বশেষ ১৯৯৫-৯৬ মৌসুমে উয়েফা উইনার্স কাপ জেতে দলটি। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে এখন অবধি প্রায় ৪৮ বছরে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নক আউট পর্বে পিএসজির মোট গোল ৩৮টি। সেই হিসেবে বলা যায় রোনালদো নক আউট পর্বে পিএসজির পুরো দলের চেয়ে ২৭টি গোল বেশি করেছেন।

৪. পোর্তো (নক আউট পর্বে মোট গোল ৩৯টি)

পর্তুগিজ লিগের সবচেয়ে সফল দল পোর্তো। দলটি এখন অবধি ২৮ বার লিগ শিরোপা জিতেছে। লিগের পাশাপাশি পর্তুগিজ সুপার কাপেও একক আধিপত্য ধরে রেখেছে দলটি। রেকর্ড ২১ বারের মতো এই প্রতিযোগিতার শিরোপা জিতেছে পোর্তো। ঘরোয়া লিগে সফলতার পাশাপাশি ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায়ও দলটি একাধিকবার শিরোপা জিতেছে। শীর্ষ ৫ লিগের বাইরের দল হয়েও এখন অবধি ২ বার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতেছে পোর্তো।

পোর্তোর খেলোয়াড়েরা; Image Source: 90Min

১৯৮৬-৮৭ মৌসুমে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতে দলটি। পরবর্তীতে ২০০৩-০৪ সালে মরিনহোর নেতৃত্বে দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা জেতে পোর্তো। এরপর এখন অবধি এই প্রতিযোগিতায় তেমন কোনো উল্লেখযোগ্য সফলতা পায়নি পর্তুগিজ চ্যাম্পিয়নরা। চলতি মৌসুমে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠলেও লিভারপুলের বিপক্ষে উভয় লেগে পরাজিত হয়ে বাদ পড়ে পোর্তো। ১২৫ বছরের ইতিহাস সমৃদ্ধ দলটির চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নক আউট পর্বে সর্বমোট গোল ৩৯টি। আর নক আউট পর্বের মোট গোলের হিসেবে পর্তুগিজ জায়ান্ট পোর্তোর চেয়েও এগিয়ে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

৩. বরুশিয়া ডর্টমুন্ড (নক আউট পর্বে মোট গোল ৩৮টি)

জার্মান জায়ান্ট বরুশিয়া ডর্টমুন্ড তরুণ ফুটবলার নির্ভর একটি দল। ইউরোপের শক্তিশালী দলগুলোর মধ্যে এটি একটি। জার্মান লিগে তারা অনেকগুলো শিরোপা না জিতলেও বরাবরই দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে আসছে। ১০৯ বছরের ইতিহাস সমৃদ্ধ দলটি বুন্দেসলিগায় এখন পর্যন্ত ৮ বার শিরোপা জিতলেও দ্বিতীয় হয়েছে ৭ বার। প্রতিবারই শিরোপা জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছায় ডর্টমুন্ড।

বরুশিয়া ডর্টমুন্ড; Image Source: 90min

দেশীয় লিগের পাশাপাশি ইউরোপীয় প্রতিযোগিতায়ও নিয়মিত অংশগ্রহণ করে যাচ্ছে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। যদিও মর্যাদাপূর্ণ উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দলটি শিরোপা জিতেছে মাত্র একবার তাও ১৯৯৭ সালে । পরবর্তীতে ২০১৩ সালে ফাইনাল খেললেও চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে হেরে যায় দলটি। গৌরবময় ইতিহাস এবং লয়্যাল সমর্থকগোষ্ঠি সমৃদ্ধ বরুশিয়া ডর্টমুন্ড চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নক আউট পর্বে সবমিলিয়ে গোল করেছে ৩৮টি। আর এই হিসেবে গোলের দিকদিয়ে ডর্টমুন্ড থেকেও এগিয়ে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

২. লিভারপুল (নক আউট পর্বে মোট গোল ৪৯টি)

বর্তমান সময়ে তারকা সমৃদ্ধ দলগুলোর মধ্যে লিভারপুল প্রথম সারিতে রয়েছে। ইয়ুর্গেন ক্লপের নেতৃত্বে বেশ শক্তিশালী একটি দল পেয়েছে লিভারপুল। শুধু বর্তমান সময়ে নয়, অতীতেও লিভারপুল দল ছিলো সেরাদের কাতারে। ২৮ বছর আগে সর্বশেষ লিগ জিতলেও এখন অবধি লিভারপুলের লিগ শিরোপা সংখ্যা ১৮টি যা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। অন্যদিকে, চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও বেশ সফল লিভারপুল। এখন পর্যন্ত সর্বমোট ৫ বার এই প্রতিযোগিতার শিরোপা জিতেছে দলটি।

লিভারপুলের খেলোয়াড়েরা; Image Source: 90min

কিন্তু এত এত সফলতা অর্জন করলেও নক আউট পর্বে দলটির মোট গোল মাত্র ৪৯টি। আর নক আউট পর্বের মোট গোলের হিসেবে খেলোয়াড় রোনালদো যে দলগুলোকে ছাড়িয়ে গেছেন তাদের মধ্যে লিভারপুল একটি। ১২৬ বছরের ইতিহাস সমৃদ্ধ দলটি চলতি মৌসুমেও ধারাবাহিকভাবে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে। উল্লেখ্য গত মৌসুমে ফাইনাল খেলে দলটি।

১. আর্সেনাল (নক আউট পর্বে মোট গোল ৫৩টি)

ফুটবলের এই আধুনিক যুগে এসে আর্সেনাল হয়তো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের দিকে মনোযোগী হয়নি এবং শক্তিশালী দলও গড়েনি। কিন্তু ১৩২ বছরের ইতিহাস সমৃদ্ধ দলটি ইংল্যান্ডের সকল ঘরোয়া লিগে সফলতা অর্জন করেছে। ১৩ বারের লিগ শিরোপা জেতা আর্সেনাল সর্বোচ্চ ১৩ বার এফএ কাপ জিতেছে।

আর্সেনালের খেলোয়াড়েরা; Image Source: 90Min

একটা সময় প্রায় নিয়মিতই চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অংশগ্রহণ করতো আর্সেনাল। আর সেই সময় থেকেই জায়ান্টদের কাতারে নাম লেখায় দলটি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নক আউট পর্বে আর্সেনালের মোট গোল সংখ্যা ৫৩টি, যা খোলোয়াড় রোনালদোর চেয়ে কম। নক আউট পর্বের গোলের হিসেবে তিনি যে বড় দলগুলো থেকে এগিয়ে তাদের মধ্যে আর্সেনাল অন্যতম।

Featured Image: SportsClub

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *