২০১৯ বিশ্বকাপের প্রত্যেক দলের সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় যারা

চলতি ২০১৯ বিশ্বকাপে প্রত্যেক দলই মাঠে নেমেছে তাদের সেরা খেলোয়াড়দের নিয়ে। প্রত্যেক দলের স্কোয়াডে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের পাশাপাশি রয়েছেন বেশ কয়েকজন তরুণ খেলোয়াড়। আমাদের আজকের আলোচনা সাজানো হয়েছে প্রত্যেক দলের সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড়দের নিয়ে।

১০. ইশ সোদি (নিউজিল্যান্ড);
জন্ম: ৩১-১০-১৯৯২, বয়স: ২৬

ক্রিকেটে সেরা দলগুলোর একটি হলেও এখন অবধি কোনো বিশ্বকাপ জিততে পারেনি নিউজিল্যান্ড। ২০১৫ বিশ্বকাপে শিরোপা জয়ের খুব কাছাকাছি গিয়েও সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যায় কিউইদের। কিন্তু এবারের বিশ্বকাপে শক্তিশালী স্কোয়াড নিয়ে খুব ভালোভাবেই ঘুরে দাঁড়িয়েছে দলটি। আর তাদের শক্তিশালী এই স্কোয়াডে জায়গা পেয়েছেন ইশ সোদি।

এবারের বিশ্বকাপে কিউই খেলোয়াড়দের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়সী ক্রিকেটার সোদি। চলতি বিশ্বকাপের এই তালিকায় জায়গা পাওয়া অন্য সব কম বয়সী খেলোয়াড়দের মধ্যে তিনিই জ্যেষ্ঠ। জ্যেষ্ঠ হওয়ার সাথে সাথে তিনি অন্যাদের তুলনায় পরিপক্কও বটে।

ইশ সোদি; image source: newshub.co.nz

নিউজিল্যান্ড দলের হয়ে মূলত বোলার হিসেবেই ভূমিকা পালন করেন সোদি। লেগ স্পিনের কেরামতি দেখিয়ে উইকেটে থিতু হওয়া ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে ফেরাতে ওস্তাদ এই কিউই বোলার। দলের হয়ে খেলেছেন ৩০টি ওডিআই ম্যাচ, এখন পর্যন্ত শিকার করেছেন ৩৯ উইকেট।

৯. প্যাট কামিন্স (অস্ট্রেলিয়া);
জন্ম: ০৮-০৫-১৯৯৩, বয়স: ২৬

বর্তমান চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া এবারো বিশ্বকাপ জিততে মরিয়া । তাই তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে লড়ে যাচ্ছে বাকি সব দলের সাথে। দলটির স্কোয়াডের সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় প্যাট কামিন্স। বল হাতে যার সাম্প্রতিক ফর্ম বেশ তুঙ্গে।

প্যাট কামিন্স; image source: espncricinf.com

ব্যাট হাতে যেমন তাণ্ডব চালান ওয়ার্নার ও স্মিথরা তেমন বল হাতে তাণ্ডব চালাতে পারেন কামিন্স। এখন পর্যন্ত অজিদেরর হয়ে মাত্র ৫৩ টি ওডিআই ম্যাচ খেলে শিকার করেছেন ৯৩ উইকেট। ২০১৫ বিশ্বকাপ জয়ের পেছনেও তার ভূমিকা ছিল।

৮. কুলদ্বীপ যাদব (ইন্ডিয়া);
জন্ম: ১৪-১২-১৯৯৪, বয়স: ২৪

ভারতীয় ক্রিকেট দলের স্কোয়াডে সবথেকে কনিষ্ঠ এবং সেরা খেলোয়াড়দের মধ্যে একজন হলেন কুলদ্বীপ যাদব। বর্তমানে ভারতীয় দলের বোলিং লাইন আপের অন্যতম শক্তি এই কুলদ্বীপ। ওডিআই ক্যারিয়ারে তিনি ৪৭ ম্যাচে ৯০ উইকেট তুলে নিয়ে এখন পর্যন্ত তুলনামূলক ভালো ফর্মেই রয়েছেন।

কুলদ্বীপ যাদব; image source: newshub.co.nz

বাঁ-হাতি এই স্পিনারের বল অধিকাংশ সময় ব্যাটসম্যানের চোখ এবং ব্যাটকে ফাঁকি দিয়ে মুহুর্তের মধ্যে উইকেটে আঘাত হানে। ফলে তার স্পিনের ঘূর্ণি বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানদের কাছেও আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমন বোলিংয়ের কারণেই তিনি অন্যান্য খেলোয়াড় থেকে আলাদা।

৭. টম কুরান (ইংল্যান্ড);
জন্ম: ১২-০৩-১৯৯৫, বয়স: ২৪

ইংল্যান্ড দলের স্কোয়াডে থাকা টম কুরানের বাবা কেভিন কুরান জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দলের সাবেক ক্রিকেটার। এছাড়াও তার অন্য দুই ভাইবোনও ক্রিকেটার। দলে তিনি মূলত অলরাউন্ডার হিসেবেই ভূমিকা রাখেন।

টম কুরান; image source:independent.co.uk

২৪ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার দলের হয়ে খেলেছেন মোট ১৭ ম্যাচ। এবং সংগ্রহ করেছেন মোট ২৭টি উইকেট। দলে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের কমতি না থাকায় নিজেকে প্রকাশ করার তেমন একটা সুযোগ পাচ্ছেন না কুরান।

৬. লুঙ্গি এনগিডি (দক্ষিণ আফ্রিকা);
জন্ম: ২৯-০৩-১৯৯৬, বয়স: ২৩

লুঙ্গি এনগিডি দক্ষিণ আফ্রিকা দলের অন্যতম সেরা ফাস্ট বোলার। ২৩ বছর বয়সী এই প্রোটিয়া ক্রিকেটার নিজের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে খেলেছেন মোট ২০টি ম্যাচ, পেয়েছেন ৩৭টি উইকেট। বলের গতির কারণে ব্যাটসম্যানদের ওপর বেশ কর্তৃত্ব খাটান এই ফাস্ট বোলার।

লুঙ্গি এনগিডি; image source:msn.com

কিন্তু ফাস্ট বোলারদের চিরশত্রু ইঞ্জুরির কারণে চলতি বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকা দলের স্কোয়াডে জায়গা পেয়েও দর্শক বনে গেছেন। বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার পরপরই তাকে দেশে ফিরতে হয়েছে।

৫. ওশেন থমাস (ওয়েস্ট ইন্ডিজ);
জন্ম: ১৮-০২-১৯৯৭, বয়স: ২২

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলারদের মধ্যে অন্যতম সেরা ফর্মে থাকা একজন পেসার হলেন ওশেন থমাস। ১৫০ কিলোমিটার/ঘণ্টা বেগে বল করতে পারেন তিনি। বলে এমন গতির কারণেই চলতি বিশ্বকাপে সবার নজর কেড়েছেন অল্পবয়সী জ্যামাইকান এই বোলার।

ওশানে থমাস; image source: espncricinf.com

ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই ভালো খেলছেন বলেই সদ্য অভিষেক হওয়া ২২ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার জায়গা করে নিয়েছেন বিশ্বকাপ স্কোয়াডে। ওডিআই ক্রিকেটে ইতোমধ্যে ১৪টি ম্যাচ খেলে প্রতিপক্ষের কাছ থেকে তুলে নিয়েছেন ২২টি উইকেট তিনি।

৪. মেহেদী হাসান মিরাজ (বাংলাদেশ);
জন্ম: ২৫-১০-১৯৯৭, বয়স: ২১

সম্প্রতি ডাবলিনে অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া ত্রিদেশীয় সিরিজের চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ দলের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় হলেন মেহেদী হাসান। দলের প্রয়োজনে মূলত অলরাউন্ডার হিসেবেই ভূমিকা রাখেন তিনি। তবে ব্যাটিং এর থেকে বোলিং করেই রীতিমতো সাড়া ফেলে দিয়েছেন সর্বকনিষ্ঠ এই অলরাউন্ডার।

মেহেদী হাসান; image source: gettyimages.com

অফ স্পিন করে এখন পর্যন্ত ৩২টি ওডিআই ম্যাচ খেলে তুলে নিয়েছেন ৩৪টি উইকেট এবং ব্যাট হাতে করেছেন ৩১৫ রান। বাংলাদেশ দলের মিডল অর্ডারে ব্যাট করতে নামা এই অলরাউন্ডার ভালো সঙ্গ দিতে পারেন অন্য ব্যাটসম্যানদের।

৩. আভিশকা ফার্নান্দো (শ্রীলঙ্কা);
জন্ম: ০৫-০৪-১৯৯৮, বয়স: ২১

শ্রীলঙ্কা দলের স্কোয়াডে থাকা টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের মধ্যে একজন হলেন আভিশকা ফার্নান্দো। তবে এখন পর্যন্ত এবারের বিশ্বকাপে কোনো ম্যাচে খেলার সুযোগ পাননি অল্পবয়সী এই লঙ্কান ক্রিকেটার। কেননা তাকে মূলত ব্যাকাপ হিসেবেই রাখা হয়েছে স্কোয়াডে।

আভিশকা ফার্নান্দো; image source: espncricinfo.com

ক্রিকেট ক্যারিয়ারে ২১ বছর বয়সী এই খেলোয়াড় খেলেছেন মোট ৬টি ম্যাচ। আর সেখান থেকে তার সংগ্রহ ১৪৫ রান। এত কম বয়সে অল্পসংখ্যক ম্যাচে অংশগ্রহণ করা সত্যেও জায়গা পেয়েছেন বিশ্বকাপের স্কোয়াডে।

২. শাহীন আফ্রিদি (পাকিস্তান);
জন্ম: ০৬-০৪-২০০০, বয়স: ১৯

২০১৯ বিশ্বকাপে পাকিস্তান দলের সবচেয়ে কম বয়সী খেলোয়াড় হলেন শাহীন আফ্রিদি। তার জন্মের আগেই পাকিস্তানের স্কোয়াডে থাকা আরেক খেলোয়াড় শোয়েব মালিকের ওয়ানডে ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল। তাছাড়া চলতি বিশ্বকাপের এই আসরেই পাকিস্তানের স্কোয়াডে থাকা তার সতীর্থ মোহাম্মদ হাসনাইনের থেকে তিনি মাত্র একদিনের ছোট।

শাহীন আফ্রিদি; image source: icc-cricket.com

দলের জন্য বোলার হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন আফ্রিদি। বল হাতে ১৫টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলে প্রতিপক্ষের কাছ থেকে নিয়েছেন ২৬টি উইকেট। বর্তমানে তার হাত ধরেই সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্ন দেখছে পাকিস্তান।

১. মুজিব উর রহমান (আফগানিস্তান);
জন্ম: ২৮-০৩-২০০১, বয়স: ১৮

বিশ্বকাপে দ্বিতীয়বারের মতো অংশ নেওয়া আফগানিস্তান দলের সবথেকে কম বয়সী ক্রিকেটার হলেন মুজিব উর রহমান। শুধু আফগানিস্তান দলের নয়, চলতি এই বিশ্বকাপে খেলতে নামা সব ক্রিকেটারের মধ্যেও তিনি সর্বকনিষ্ঠ। মাত্র ১৮ বছর বয়সে তিনি জায়গা করে নিয়েছেন ক্রিকেট বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে।

মুজিব উর রহমান; image source: icc-cricket.com

আফগানিস্তান দলে তিনি বোলার খেলছেন। অফ স্পিন বল করে পাল্লা দিয়ে চলেছেন খেতাবধারী সব বোলারদের সাথে। ওডিআই ক্যারিয়ারে এখন পর্যন্ত খেলেছেন মোট ৩৩টি ম্যাচ, পেয়েছেন ৫২টি উইকেট। সবমিলিয়ে বিশ্বকাপের এই আসরে আফগানিস্তান দলের সফলতার পেছনে বেশ ভূমিকা রেখে চলেছেন অল্পবয়সী এই তারকা ক্রিকেটার।

Feature image source:cricket.com.au

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *